শনিবার ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শাল্লায় করোনা আতঙ্কে বাড়ি ফেরা আপনজন নিয়ে

বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০     223 ভিউ
শাল্লায় করোনা আতঙ্কে বাড়ি ফেরা আপনজন নিয়ে
পি সি দাশ, শাল্লা : শাল্লায় দেশের বিভিন্ন স্থান হতে বাড়ি ফেরা আপনজনদের নিয়ে প্রতিমুহুর্তে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর  আতঙ্কে  দিন কাটছে। সম্প্রতি ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, গাজীপুরসহ বিভিন্ন স্থান হতে গ্রামের বাড়ি আগতদের নিয়ে সব জায়গায় সমালোচনা হচ্ছে।
করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে কলকারখানা বন্ধ করা হয়েছে।  শহরের কর্মক্ষেত্রগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শহর থেকে মানুষ দলবেঁধে গ্রামে ফিরছে।  এর ফলে  করোনার ভয়াবহ  আকার ধারন করতে পারে বলে গ্রামের মানুষজন মনে করছে।   যারা  ৩/৪ দিন যাবত বাড়ি এসেছে তারা অবাদে চলাফেরা করছে।
শহর ফেরত মানুষগুলো কোন রকম হোম কোয়ারান্টাইন না মেনে অবাধে চলাফেরা করার কারনে  গ্রামে করোনা ঝুঁকি বাড়ছে।
আইসিইইডিআর এর সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ জেলায়।  সেই সব জায়গা থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ১৫০  জন লোক  শাল্লা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এসেছে এবং  তারা কোন  রকম হোম কোয়ারান্টাইন মানছেনা।
গত ২ থেকে ৩ দিনে   উপজেলার ঘুঙ্গিয়ারগাঁও,ডুমরা,মুক্তারপুর,মনুয়া,সহদেব পাশা,গ্রাম শাল্লা, আনন্দপুর, হবিবপু, উজানগাঁও, বড়গাঁও, ফয়জুল্লাহপুর, মার্কুলী, আদিত্যপুর, গোবিন্দপুর, আবদা, বাহাড়া,যাত্রাপুর, আছানপুর,পুটকা, নয়াগাঁও সহ  বহুু গ্রামে খবর নিয়ে জানা যায় এই সব গ্রামে অনেকেই  ঢাকা,  নারায়ণগঞ্জ গাজীপুর থেকে এসেছে। এদের অধিকাংশের   খবর এখন পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসন জানেন না।আবার যাদের খবর জানেন তাদেরকে শুধু হোম কোয়ারান্টাইনে থাকতে বলা হলে ও তাদের কোন নমুনা সংগ্রহ করা এখন পর্যন্ত  হয়ে ওটেনি ।
এবিষয়ে রামপুর গ্রামের কৃপেশ সরকার বলেন, এখন যারা ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, ও গাজীপুর থেকে গ্রামে আসছে তাদের নিয়েই আমাদের বড় আতঙ্ক। কে কোন দিকে কি নিয়ে আসছে বলা যাচ্ছেনা।  এসময় আনন্দপুর গ্রামের রুবেল দাস, সুজন দাস, প্রতাপ রায়, রতিন্দ্র রায় জানান  এখন নিজের মানুষজনই আমাদের কাছে বড় আতঙ্ক।
তারা আরো বলেন টেলিভিশনে দেখি যে সব জায়গা লকডাইন করা হয়েছে সেই সব স্থান হতে এলাকার বিভিন্ন গ্রামে লোকজন আসছে। শুধু তাই নয় তারা এসে  তাদের মত চলছে। কি যে হয় এই ভয়ের মধ্যে আছি।  তাদেরকে হোম কোয়ারান্টাইনেে রাখার জন্য প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ  প্রয়োজন বলে তারা জানান।
এলাকার সচেতন মহল বলছে, যারা দেশের বিভিন্ন স্থান হতে গ্রামে এসেছে  এলাকার সার্থে    তাদের  খবরা খবর নিয়ে নমুনা পরীক্ষা করা জরুরী।
এবিষয়ে শাল্লা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম বলেন, যারা ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর থেকে এসেছে তাদের কে আলাদাভাবে রাখতে পুলিশকে বলা হয়েছে।এবং আমরা তাদের নমুনা সংগ্রহের কাজ করছি বলে জানা।
থানা অফিসার ইনচার্জ আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমারা শহর ফেরত মানুষগুলোকে হোম কোয়ারান্টাইন এ থাকতে বলেছি।যদি কেউ হোম কোয়ারান্টাইন না মানে  তাদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি এবিষয়ে অবগত আছেন। যারা আসছে তাদেরকে অবশ্যই ১৪ দিন তাদের নিজ ঘরে   অবস্থান করতে হবে। অন্যতা আইনি প্রক্রিয়ায় তাদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৮:৫৯ অপরাহ্ণ | বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com