শুক্রবার ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিশ্বম্ভরপুরে বোর ধান ঘরে তোলা শেষ পর্যায়

মঙ্গলবার, ০৫ মে ২০২০ 44 ভিউ
বিশ্বম্ভরপুরে বোর ধান ঘরে তোলা শেষ পর্যায়

স্বপন কুমার বর্মন, বিশ্বম্ভরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার হাওর এলাকায় সোনালী বোর ধান ঘরে তোলার শেষ কাজে ধুম পড়েছে। প্রচন্ড রোধ আর আবহাওয়া ভালো থাকায় এবং বামপার ফলন হওয়ায় কৃষকরা মনের আনন্দে সোনার বোর ফসল ঘরে তুলছেন। হাওরের ধান কাটার প্রায় শেষ পর্যায়ে ২/৩ দিনের মধ্যেই হাওরের ধান কাটা শেষ হবে বলে আশা করা যায়।

ধান কাটর শুরুতে আবহাওয়া কিছুটা খারাপ থাকায় এবং করোনা ভাইরাস আতঙ্কে ও শ্রমিক সংকটে আশংকাং হাওর পাড়ের কৃষকরা অনেকটাই হতাশায় পড়েছিল। পরবর্তীতে আবহাওয়া ভালো হওয়ায় এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে করোনা ভাইরাসকে উপেক্ষা করে ধান কাটে, তাছাড়া শ্রমিক সংকটও ছিলনা। ফলে একটানা হাওরে পরিপূর্ণ ভাবে ধান কাটা হয়। ধান ও গো-খাদ্যর খড় একই সাথে শুকিয়ে কৃষকরা ঘরে তুলতে পারছেন।

বোর ধান ঘরে তোলার শেষ পর্যায়ে, ধান মারাই, ধান শুকানো, খড় শুকানো ঘরে তোলা সহ ব্যস্থ সময় কাটাছেন হাওর পাড়ের কৃষক কৃষানী সহ কৃষক পরিবারে লোকজন ও ধান কাটার শ্রমিক, মাড়াই কলের শ্রমিকগন। এ বছরের মতো সোনার বৈশাখি বিগত ১০বছরেও হয়নি বলে অনেক কৃষকরাই মন্তব্য করছেন।

করোনা ভাইরাস আতঙ্ক থাকা সতেও হাওর কৃষকরা উৎসব মুখোর মনের আনন্দে বোর ধান ঘরে তুলছেণ। হাওর পাড়ের কৃষ্ণনগর গ্রামের কৃষক কাজল বর্মন ও আবুল হোসেন বলেন এ বছর বামপার ফলন হয়েছে এবং আবহাওয়া ভালো থাকায় শান্তিপূর্ণ ভাবে আমরা আমাদের কষ্টার্জিত বোর ধান ও গো-খাদ্যর খড় তুলতে পেরেছি।

অনুরুপ কথা বলছেন হাওর পাড়ের শত শত কৃষকগন। ধান কাটার শ্রমিক তরঙ্গীয়া গ্রামের নূর মাহমুদ বলেন আবহাওয়া ভালো থাকায় এবং বামপার ফলন হওয়ায় আমরা গৃহস্থের বোর ধান সুন্দর ভাবে কাটতে পেরেছি। ভালো ফলন হওয়ায় আমাদের ও পুষিয়েছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আমরা মাস্ক ব্যবহার করেছি এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ধান কেটেছি। মাড়াই কলের মাালিক মিজান বলেন আবহাওয়া ভালো থাকায় কাটা ধান শুকনা থাকায় মাড়াই করতে সুবিধা হয়েছে। আমরা ধান মাড়াই করে লাভবান হয়েছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দীপক কুমার দাশ জানান এ বছর বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় মোট ১০,৬৭৫ হেক্টর জমিতে স্থানীয় ও উফশি বোর ধান চাষাবাদ হয়েছিল। এর মধ্যে হাওরে ৬,৪৩৫ হেক্টর ও হাওর বহির্ভূত ৪,২৪০ হেক্টর জমিতে বোর চাষ আবাদ হয়। আবহাওয়া ভালো থাকায় বামপার ফলন হয়েছে এবং কৃষকরা সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণ ভাবে ধান কাটতে পারছেন।

হাওরে এ পর্যন্ত ৯৭% ধান কাটা শেষ হয়েছে। এ পর্যন্ত হাওর ও হাওর বহির্ভূত মিলে ৮,৬৩৪ হেক্টর বোর জমির ধান কাটা হয়েছে। এবং হাওর বহির্ভূত জমিতেও ধান কাটা হচ্ছে সাবির্ক অবস্থায় উপজেলায় বোর ধান কাটা ও ফসল উৎপাদন ভালো হয়েছে। এ বছর বোর ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্র ছিল ৫৩,৩৭৫ মেঃটন ধান। তিনি বলেন এ বছর এ লক্ষ মাত্রা অতিক্রম করবে বলে তিনি মনে করেন।

Facebook Comments
advertisement

Posted ১০:০৫ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ০৫ মে ২০২০

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com