রবিবার ১৪ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

বাবা-মাকে হারিয়ে দুই দুগ্ধপোষ্য শিশুর মানবেতর জীবন 

শুক্রবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২০     88 ভিউ
বাবা-মাকে হারিয়ে দুই দুগ্ধপোষ্য শিশুর মানবেতর জীবন 

মোঃ আব্দুর রকিব, হবিগঞ্জ থেকে : যে বয়সে মা-বাবার উষ্ণ আদরে বেড়ে উঠার কথা আফিয়া আক্তার ও আফরিন আক্তারের সে বয়সে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছে। দুই বছর বয়সের জমজ দুটি বোন বাবা মাকে হারিয়ে নৈস্বর্গীক স্নেহ মমতা বঞ্চিত হয়েছে। সেই থেকে এতিম দুটি শিশু দাদা দাদীর পরম স্নেহ যত্নে বেড়ে উঠছে। দাদা-দাদুর অকৃত্রিম ভালবাসা আর আদর যত্ন মাতৃ স্নেহের মতো নয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের চাঁনপুর গ্রামের আব্দুল মতলিব মিয়ার ছেলে মৃত নোমান মিয়া ও তার স্ত্রী ঈয়াসমিন আক্তারের জমজ দুই মেয়ে আফিয়া আক্তার ও আফরিন আক্তার। গত ২০ মার্চ আফিয়া ও আফরিনের পিতা- নোমান মিয়া ও মাতা- ঈয়াসমিন আক্তার চিকিৎসার প্রয়োজনে সিএনজি করে শহরে রওনা হয়েছিলেন। পথিমধ্যে মহাসড়কের নুরপুর নামক স্থানে পৌঁছলে একটি কুমিল্লা ট্রান্সপোর্ট এর বাস তাদের বহনকারী অটোরিক্সাকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান নোমান মিয়া। গুরুতর আহত অবস্থায় তার স্ত্রী ঈয়াসমিনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৬ষ্ট দিনে তিনিও মৃত্যু বরণ করেন। সেইদিন থেকে এতিমের খাতা নাম উঠে আফিয়া আক্তার ও আফরিন আক্তারের।

জানা যায়, আব্দুল মতলিব মিয়ার ছেলে মৃত নোমান মিয়া ছিল পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তার অকস্মাৎ মৃত্যুতে গোটা পরিবারই অরক্ষিত ও অনটনে নিমজ্জিত হয়। নোমানের মৃত্যুতে এই পরিবারটি অসহায় হয়ে পড়েছে। বর্তমানে শিশুদ্বয়ের দাদা-দাদু তাদের ভরণপোষণ করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন।

এতিম আফিয়া ও আফরিনের দাদা মুতলিব মিয়া জানান, “আমি একজন বৃদ্ধ মানুষ ওদের নিয়ে খুব কস্টে আছি, আমি চোখেও দেখিনা, আপনারা আমার নাতিনদের জন্য কিছু একটা করেন”। শিশুদুটির দাদীর সাথে কথা বললে, তিনি জানান, আমার ছেলে ও বৌমা মারা যাওয়ার পরে অনেকেই আমার নাতিনদেরকে দত্তক নিতে চেয়েছিলেন, কিন্তু আমরা দত্তক দেইনি, আমার ছেলের শেষ স্মৃতি আমি নস্ট করতে চাইনা। এরা আমার ছেলের রেখে যাওয়া আমানত, আপনারা পারলে আমার এতিম নাতিনদের জন্য কিছু করুন।

এদিকে, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমি আক্তার আফিয়া ও আফরিনের জন্য সহায়তার হাত বাড়িয়ে ছিলেন। নুরপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ন আহব্বায়ক আবেদুর রহমান পাবেল জানান, জমজ মেয়ে দুইটি, বাবা মা হারিয়ে খুব মানবেতর জীবনযাপন করছে, আমি বিত্তবানদের তাদের পাশে দাড়ানোর আহব্বান জানাই।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিনহাজুল ইসলাম বলেন, আমি এ বিষয়ে অবগত আছি, ওই পরিবারকে ডিসি অফিস থেকে একবার সহায়তা করা হয়েছিল। আমি আফিয়া ও আফরিনের চাচাকে বলেছিলাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সমাজ সেবা অধিদপ্তরে আবেদন করার জন্য আমি সুপারিশ করে দিব। এর পরেও অন্য কোন সুযোগ থাকলে আমি সহায়তা করার চেষ্টা করব।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৩৮ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২০

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com