রবিবার ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

খাবারের নাম ছিকর: চাহিদা আছে লন্ডনে

নবীগঞ্জের দিনারপুর পাহাড়ের এটেঁল মাটির ছিকর: বিলুপ্তির পথে

মতিউর রহমান মুন্না , নবিগঞ্জ প্রতিনিধি:-   রবিবার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯     234 ভিউ
নবীগঞ্জের দিনারপুর পাহাড়ের এটেঁল মাটির ছিকর: বিলুপ্তির পথে

শিরোনাম দেখে হয়তো অনেকেই ভাবছেন- ছিকর আবার কোন খাবার? তাও মাটি দিয়ে তৈরী হতো, এটা কীভাবে সম্ভব? অবাক হওয়ারই কথা। অবাক হলেও কথাটি সত্যি। বর্তমান প্রজন্মের কাছে ছিকর শব্দটি নতুন মনে হলে প্রবীনদের কাছ থেকে জেনে নিতে পারেন। কিন্তু কালের বিবর্তনে নবীগঞ্জ উপজেলার পাহাড়ী অঞ্চল খ্যাত দিনারপুর পরগনার এতিহ্যবাহী ছিকর শিল্প এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। আশি দশকের পূর্বে ওই অঞ্চলের বেশ
কয়েকটি পরিবার পাহাড়ের এটেঁল জাতিয় মাটি দিয়ে এক প্রকার আহার্য্য সামগ্রী তৈরি করে বিক্রি লব্দ অর্থ দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। বিভিন্ন জিনিস পত্রের সাথে ইহা ফেরি করে নগদ টাকা পয়সা ও চাউল দিয়ে বিক্রি করা হত বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য, ছিকর একটি ফারসি শব্দ। ছিয়া মানে কালো আর কর মানে মাটি। ছিয়াকর শব্দটিই পরে ছিকর হয়ে গেছে। ক্ষিধা নিবারণের জন্য নয়, বরং এক ধরণের অভ্যাসের বশে লোকজন তা খেয়েছে বলে প্রবীণ লোকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে। ছিকর হচ্ছে একধরণের পোড়া মাটি। পাহাড়ি টিলার মাটি দিয়ে বিশেষ এক পদ্ধতিতে আগুনে পুড়িয়ে তৈরি হয় ছিকর। ছিকর বিভিন্ন আকৃতির হয়ে থাকে। কোনটি দেখতে বিস্কুটের মত কোন কোন ছিকর আছে ললিপপের মত লম্বা আবার কোন ছিকর ছোট লজেন্সের মতো।

এবার ছিকরের খোজেঁ গিয়ে পাওয়া গেল একজন ছিকর শিল্পীকে। তিনি দিনারপুর পরগনার গজনাইপুর ইউনিয়নের কায়স্থগ্রামের ঝরনারানি কর। তিনি বাপ-দাদার আমল থেকেই ছিকর বানান।
ঝরনা রানি জানান, পাহাড়, হাওর আর বিজনা নদী মিলিয়ে কায়স্থগ্রাম। একসময় বিজনায় বড় বড় নৌকা চলত। পাইকাররা নৌকা বোঝাই করে ছিকর নিয়ে যেতেন দূর-দূরান্তে। তখন সুদিন ছিল ছিকরের। দিন-রাত কাজ করেও ঝরনা রানির পূর্বপুরুষরা পাইকারদের চাহিদা মেটাতে পারতেন না। সেটা শত বছর আগের কথা। ছিকরের মাটিকে লোকে ডাকে ছিকনা মাটি। এক ধরনের এঁটেল মাটি। দিনারপুরের কান্দিগাঁও গ্রামের পাহাড়ে মেলে এ মাটি।

যেভাবে হয় ছিকর                                                                                                                                                                ঝরনারানি বললেন, ছিকর তৈরিতে আসলে লাগে দক্ষতা। মাটি শুকানো ও পোড়ানোতেই আসল কারসাজি। ঠিকভাবে না হলে স্বাদ আর ঘ্রাণ কোনোটাই পাওয়া যায় না। ছিকনা মাটি তুলে আনাটাও গুরুত্বপূর্ণ কাজ। টিলায় গর্ত খুঁড়ে লম্বা বাঁশের সাহায্যে গভীর থেকে তুলে আনা হয় এ মাটি। রাতের বেলা মাটিগুলো একটি গামলায় নিয়ে পানিতে ভিজিয়ে রাখা হয়। সারা রাত ভিজে মাটি নরম হলে ছাঁচে ফেলে প্রথমে তৈরি করা হয় ম-। তারপর কাঠের হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে চ্যাপ্টা করা হয়। এরপর চাকু দিয়ে বিস্কুটের মতো ছোট ছোট করে টুকরা করা হয়। তবে গ্রাহক চাহিদা অনুযায়ী ললিপপ বা লজেন্স আকৃতির ছিকরও হয়ে থাকে। কাটার পর কাঁচা ছিকরগুলো রোদে দেওয়া হয়। দু-এক দিন শুকানোর পর এক ধরনের বিশেষ চুলায় এগুলো পোড়ানো হয়। তারপর একটি মাটির হাঁড়ির নিচের অংশ ভেঙে সেখানে লোহার শিক দিয়ে তৈরি চালুনি বসানো হয়। ছিকরগুলো ওই চালুনির ওপর বসানো হয়। তারপর হাঁড়িটি রাখা হয় একটি মাটির গর্তে। ধানের তুষ দিয়ে আগুন জ্বালানো হয় গর্তে। সতর্কতার সঙ্গে ছিকরের গায়ে শুধু ধোঁয়া লাগানো হয়। দুই ঘণ্টা পর ছিকর কালচে রং ধারণ করে। সুঘ্রাণ তৈরি হয়।

গর্ভবতীদের প্রিয় খাদ্য
একসময় সিলেট অঞ্চলে, বিশেষ করে হবিগঞ্জ জেলার গ্রামাঞ্চলে ছিকরের প্রচুর চাহিদা ছিল। দোকানেও বিক্রি হতো। হকাররা বাড়ি বাড়িও পৌঁছে দিতেন। নগদ টাকায় বা চালের বিনিময়ে ছিকর কেনাবেচা হতো। গর্ভবতী মায়েদের কাছে জনপ্রিয় ছিল ছিকর। বিশ্বাস করা হতো এটা খেলে রোগবালাই সারে কিন্তু এখন এটিকে অস্বাস্থ্যকর হিসেবেই দেখা হয়।

এখনো লন্ডন যায়
ঝরনা রানি জানান, অনেক জায়গা থেকেই লোকে ছিকর খুঁজতে আসেন। মোবাইলেও যোগাযোগ করেন কেউ কেউ। প্রবাসীরা লন্ডন ফেরার আগে ছিকর নিতে আসেন। কেউ কেউ আত্মীয়দের মাধ্যমে লন্ডন পাঠাতে বলেন। প্রতি মাসে বিদেশের একাধিক ফরমায়েশ পান। গত মাসেই পাশের দেবপাড়া ইউনিয়নের এক লন্ডনপ্রবাসী এবং আরেক আমেরিকা প্রবাসী তাঁর কাছ থেকে ১০ কেজি করে ছিকর নিয়েছেন। এখন তিনি ২০০ টাকা কেজি দরে ছিকর বিক্রি করেন। তবে প্রবাসীদের ফরমায়েশ পেলে বকশিশ পান বেশি।

ছিকর নিয়ে গবেষণা
হবিগঞ্জের সবচেয়ে বড় ব্যবসা কেন্দ্র চৌধুরী বাজার এলাকায় এখনো ছিকর মেলে। হবিগঞ্জের লোকজ সংস্কৃতি সংগ্রাহক ও গবেষক আবু ছালেহ আহম্মেদ এ নিয়ে অনেক লেখালেখি করেছেন। তিনি বলেন, সিলেট অঞ্চলে একসময়ের জনপ্রিয় খাবার ছিল এটি। শত বছরের পুরনো এই ছিকরশিল্প। এখন অবশ্য বিলুপ্তপ্রায়। নবীগঞ্জ ছাড়াও বাহুবল, বানিয়াচং এবং মাধবপুর উপজেলায়ও ছিকর তৈরির কারিগর ছিল। তিনি বলেন- লোকখাদ্যে হবিগঞ্জ জেলার মানুষের আলাদা একটি ঐতিহ্য রয়েছে। অতীতে এ খাদ্যের প্রতি মানুষের নিজস্ব একটি স্বকীয়তা ছিল। খাদ্যগুলো হবিগঞ্জ ছাড়াও বিভিন্ন জেলায় ত্রিশ শতক থেকে নব্বই শতক পর্যন্ত অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল।
আবু ছালেহ আহম্মেদ এর সংগ্রহ করা তথ্য মতে- কোন এলাকার ছিকরে খাই মাখানোর সময় গোলাপজল, আদার রস ইত্যাদি মেশানো হয়। যা মাটির সাথে পুড়ানোর পর ভিন্ন এক স্বাদের জন্ম দেয়। স্থানীয় কুমার সম্প্রদায় বা মৃৎ শিল্পীদের কেউ কেউ ছিকর তৈরি করে বাজারজাত করতো। দিনারপুরে পাহাড়ি টিলা থেকে একসময় বিভন্ন এলাকার কুমাররা এসে মিহি মাটি সংগ্রহ করত। কিন্তু আজ কাল কেউ আর মাটি সংগ্রহ করতে যায় না। উক্ত টিলা ছাড়াও বানিয়াচং, বাহুবল ও মাধবপুরের বিভিন্ন জায়গায় ছিকরের উপযোগি মাটি আহরণের ক্ষেত্র আছে।

বিশিষ্ট লেখক দেওয়ান মাসুদুর রহমান চৌধুরী জানান, ‘মাটিকে ভিজিয়ে নরম করে রুটির মত করে ছোট ছোট টুকরোর মাধ্যমে বিশেষ প্রক্রিয়ায় শুধু মাত্র আগুনের ধোয়া দিয়ে পুড়িয়ে তৈরী করা হত। যা এ অঞ্চলের গ্রামগুলোতে ছিকর নামে পরিচিত। ৭০/৮০ দশকে হবিগঞ্জে প্রচুর পরিমাণে এই ছিকর পাওয়া যেত। গর্ভবতী মহিলাদের কাছে ইহা একটি পছন্দনীয় সুস্বাদু খাদ্য ছিল। তাদের ধারণা ছিল এটা খেলে বিভিন্ন রোগ বালাই থেকে বেঁচে থাকা যাবে’। আধুনিক শিক্ষিত মানুষরা ছিকর খাওয়াকে অস্বাস্থ্যকর ও রুচি বিরুদ্ধ বিবেচনা করার কারণে ছিকর এখন বিলুপ্তির পথে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৬:১৮ অপরাহ্ণ | রবিবার, ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com