বৃহস্পতিবার ২৪শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে রাস্তায় পার্শ্ব থেকেই বড়বড় গর্ত করে রাস্তায় মাটি ভরাট-এলাকাবাসীর ক্ষোভ

বৃহস্পতিবার, ০২ জানুয়ারি ২০২০ 116 ভিউ
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে রাস্তায় পার্শ্ব থেকেই বড়বড় গর্ত করে রাস্তায় মাটি ভরাট-এলাকাবাসীর ক্ষোভ

কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের দামোধরপী থেকে আলমপুর-ঘোড়াডুম্বুর পর্যন্ত ২ হাজার ১ শত মিটার রাস্থার কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। রাস্থার পার্শ্ব থেকে মাটি তুলে রাস্থার পাশ ভরাট করায় যেকোন সময় ভেঙ্গে যেতে পারে রাস্থাটি।

দীর্ঘদিন পর আলমপুর- ঘোড়াডুম্বুর এলাকার মানুষের কষ্টের কথা চিন্তা করে রাস্থার জন্য বরাদ্দ দেন পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্ব এম এ মান্নান। কিন্তু রাস্থার কাজ মনগড়া মত করে চলে গেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। রাস্থায় ১০/ ১২ ফুট দুরত্ব থেকে মাটি এনে পার্শ¦ ভরাট করার কথা থাকলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এলাকার মানুষের কথা তোয়াক্কা না করেই রাস্থার পার্শ্ব থেকে বড় বড় গর্ত করে রাস্থার পার্শে ভরাট করেছে। রাস্তার পার্শে ভরাটের জন্য ৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ থাকলেও নাম মাত্র কাজ করে বাকি টাকা লুটে নিয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। যার দরুন দীর্ঘ দিনের প্রত্যাশিত রাস্থাটি যেকোন সময় ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকায় আছেন দুই গ্রামের মানুষ। উপজেলা এলজিইডি অফিস সূত্রে জানা যায়, আলমপুর থেকে ঘোড়াডুম্বুর পর্যন্ত ২ হাজার ১ শত মিটার রাস্থার জন্য ৬৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। আর রাস্থার সাইডে মাটি কাটার জন্য বরাদ্দ ৫ লক্ষ টাকা। কাজটি পায় নিপতি এন্টারপ্রাইজ বায়স্থবায়ন করছে এলজিইডি। কাজটি জুলাই ২০১৯ শুরু হয়ে নভেম্বরে শেষ হয়। রাস্থায় মাটি ভরাটের জন্য ১০/১২ ফুট দুরত্ব থেকে মাটি আনার কথাও রয়েছে বলে এলজিইডি জানিয়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, রাস্থার খুব কাছ থেকেই বড়বড় গর্ত করে মাটি এনে পার্শে ভরাট করা হয়েছে। রাস্তার পার্শে ভরাটের জন্য ৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ থাকলেও ৪০-৫০ হাজার টাকার মাটি দিয়ে ভরাট করে বাকি টাকা লুটে নিয়েছে ঠিকাদার। রাস্থার কাজ এমনভাবে হওয়ায় এলাকার অনেকেই এসময় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য ইয়াহিয়া আহমদ সুমন বলেন, রাস্থার কাছ থেকে গর্ত করে মাটি তুলায় রাস্থা ঝুকিপূর্ণ আছে। এত টাকা বরাদ্দ হলেও বরাদ্দ অনুযায়ী কাজ হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঘোড়াডুম্বুর গ্রামের একব্যক্তি বলেন, রাস্থার কাজে অনিয়মের শেষ নেই। রাস্থার পাশে বড়বড় গর্ত করে মাটি তুলায় রাস্থা যেকোনো সময় ভেঙ্গে যেতে পারে। এ ব্যাপারে নিপতি এন্টারপ্রাইজ থেকে কাজ সাব কন্টেকে আনা জুনেদ মিয়া বলেন, আমি কাজ ঠিকমত করেছি, কোন অনিয়ম করিনি।

উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী (এলজিইডি) রাজু আহমেদ বলেন, রাস্থায় সাইড ভরাটের জন্য ১০/১২ ফুট দূরত্ব থেকে মাটি আনার কথা বলা হয়েছিল। যদি তা না করে রাস্থার পার্শ্ব থেকে গর্ত করে মাটি দিয়ে রাস্তার পার্শে ভরাট করা হয়ে থাকে তাহলে আমরা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেবুন নাহার শাম্মী বলেন, রাস্থার কাজে অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোন কাজেই কোন অনিয়ম সহ্য করা হবে না।

Facebook Comments
advertisement

Posted ১১:২০ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০২ জানুয়ারি ২০২০

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com