শনিবার ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতু কাজে আসছে না জনগনের

তাহিরপুর সেতু আছে রাস্তা নাই

আলম সাব্বির, তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ):   মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১     75 ভিউ
তাহিরপুর সেতু আছে রাস্তা নাই

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে বড়দল(উঃ)ইউনিয়নের শান্তিপুর পুর গ্রামের পাশে যাদুকাটা নদীর শাখা নদীর ওপর পাকা সেতু আছে রাস্তা নেই। কিন্তু সেতুর বয়স ৪ বছর হয়ে গেলেও দুই পাশে মাটি ভরাট করেও  যাতায়াতের উপযোগি করে তোলেনি কেউ।। এ জন্য চলাচলে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে তিনটি গ্রামের প্রায় অধর্ লক্ষাধিক বাসিন্দা।

তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বাদাঘাট-চানপুর সড়কে শান্তিপুর নদীর ওপর ৩২ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৭ সালে সেতুটি নির্মাণ করা হয়। কিন্তু নির্মাণের পর সেতুর দুই পাশে মাটি ভরাট করা হয়নি। নির্মিত হয়নি সংযোগ সড়কও। তাই নদীর ওপর ঠায় দাঁড়িয়ে রয়েছে সেতুটি।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, হেমন্তে নদীটি শুকিয়ে গেলে চলাচল করা যায়। তবে বর্ষায় নদীটি ডুবে থাকার কারণে এ পথে যাতায়াত করতে গিয়ে পরতে হয় নানা সমস্যায়। তাঁদের অভিযোগ সেতু নির্মাণ হলেও নিম ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সেতুর দুই পাশের এপ্রোচ সড়কের কাজ করেনি। এছাড়াও অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্পে ইউপি সদস্য আবু তাহের মিয়াও শতভাগ মাটির কাজ না করায় ও সংযোগ সড়ক না থাকায় নির্মাণের পর থেকে একদিনের জন্যও ব্যবহার হয়নি সেতুটি।

উপজেলা এলজিইডি সূত্রে জানা যায়, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এলজিইডি (সুনামগঞ্জ) হিলিপ প্রকল্প ৩২ লক্ষাধিক টাকা নির্মাণ ব্যয়ে ব্রিজের দরপত্র আহ্বান করে। আহ্বানের পর নির্মাণকাজের ঠিকাদারি পায় সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার পারভেজ এন্টারপ্রাইজ।

জানা যায়, উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বাদাঘাট-চানপুর সড়কটি দিয়ে উপজেলার উত্তর শ্রীপুর, দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের ৩০ গ্রামের শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ চলাচল করে। কিন্তু এই সড়কের শান্তিপুর নদীতে সেতুতে ওঠার জন্য দু-পাশে এপ্রোচ সড়কে মাটি নেই। সংযোগ সড়ক নির্মাণের জন্য ২০১৭ সালে কর্মসংস্থান কর্মসূচি প্রকল্প থেকে উত্তর বড়দল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেন। কিন্তু কাজটি অসম্পূর্ণ থেকে যাওয়ার ২০১৮ সালে বর্ষায় সেই মাটিও সরে যায়।

এ ব্যাপারে স্থানীয় মাসুক মিয়া জানান,নির্মাণের পর ব্রিজটি ব্যবহার উপযোগী করতে প্রয়োজনীয় কোন পদক্ষেপ নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।  সবার জন্য সেতুটি চলাচলের উপযোগী করতে হলে প্রোটেকশন ওয়াল দিয়ে সংযোগ সড়ক নির্মাণ করতে হবে। আর সেতুর সঙ্গে সংযোগ সড়ক হলে এলাকার অনেক বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হতো।

তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) ইকবাল কবির জানান,আমি একবারেই নতুন অঅসছি এই এলাকায় তাই এই সেতুটির বিষয়ে আমি অবগত নই,খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। উত্তর বড়দল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম বলেন,এই ব্রিজের সঙ্গে সড়কের সংযোগ না থাকায় ব্রিজটি কোন কাজেই আসছে না। ফলে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে এই পথে চলাচলকারী সবাই।

তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল জানান, জনদুর্ভোগ লাঘবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেব।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১০:২৭ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com