শুক্রবার ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ছাতকে সুরমা ব্রীজের সংযোগ সড়কের অধিগ্রহনকৃত ভুমির মুল্য পরিশোধে বিলম্ব, ক্ষতিগ্রস্থরা উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ

মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯     121 ভিউ
ছাতকে সুরমা ব্রীজের সংযোগ সড়কের অধিগ্রহনকৃত ভুমির মুল্য পরিশোধে বিলম্ব, ক্ষতিগ্রস্থরা উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ

ছাতক প্রতিনিধিঃ

ছাতকে সুরমা নদীর উপর নির্মানাধীন ব্রীজের এপ্রোচ ও সংযোগ সড়কের জন্য অধিগ্রহনকৃত ভুমির প্রকৃত মুল্য নির্ধারন ও পরিশোধ না করে কাজ চলমান রাখায় ক্ষতিগ্রস্থ ভুমি মালিকদের মাঝে অসন্তোষ বিরাজ করছে। ভুমি মালিকদের বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে সওজ এবং নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান অনেকটা বল প্রয়োগ করেই এপ্রোচ ও সংযোগ সড়কের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্থ ভুমি মালিকদের পক্ষে উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের বারকাহন গ্রামের মৃত আব্দুল খালিক তালুকদারের পুত্র ছালিক মিয়া তালুকদার নামের এক ক্ষতিগ্রস্থ ভুমি মালিক ভুমির মুল্য প্রাপ্তির জন্য এবং মুল্য পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত কাজ বন্ধ রাখার জন্য উচ্চ আদালতে একটি রিট পিটিশন দিয়েছেন।

রিটের প্রেক্ষিতে বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর দ্বৈত বেঞ্চ ২৪ আগষ্ট ৪ সপ্তাহের রুল জারি করে নির্মান কাজে ৩ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ প্রদান করেন। পাশাপাশি আদেশ জারির ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ক্ষতিগ্রস্থ মালিকদের চিঠির মাধ্যমে বিষয়টি ওয়াকিবহাল করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতিও নির্দেশ প্রদান করা হয়।

জানা যায়, সুরমা ব্রীজের এপ্রোচ ও সংযোগ সড়ক নির্মানের জন্য বিভিন্ন এলএ কেইছ এর মাধ্যমে ভাজনামহল ও কেশবপুর মৌজার প্রায় ৭ একর ভুমি অধিগ্রহন করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। ক্ষতিগ্রস্থ ভুমি মালিকদের অভিযোগ, এলাকার উন্নয়নে ও সরকারী কাজের জন্য তারা তাদের ভুমি দিয়েছেন। স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহন এবং হুকুম দখল আইন ২০১৭ অনুযায়ী সরকারী কাজে অধিগ্রহনকৃত ভুমি বর্তমান মুল্যের তিনগুন হারে মুল্য নির্ধারন ও পরিশোধ করে কাজ শুরু করার কথা রয়েছে। কিন্তু সরকারী বিধি অনুসরন না করে এবং ভুমি অধিগ্রহনের পর ভুমির ক্ষতিপুরন পরিশোধ না করেই কাজ শুরু করে সওজ এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এতে ক্ষতিগ্রস্থ ভুমি মালিকগন তাদের ভুমির মুল্য প্রাপ্তি নিয়ে আশংকা করছেন।

বারকাহন গ্রামের ছালিক মিয়া, আবু ইউসূফসহ ক্ষতিগ্রস্থ ভুমি মালিকরা জানিয়েছেন, উচ্চ আদালতের আদেশ উপেক্ষা করে সওজ এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি তারা জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে অবিহিত করবেন বলে জানান।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ২:১২ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

(250 ভিউ)

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com