রবিবার ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়ায় জমি নিয়ে দু’পক্ষের পাল্টাপাল্টি দখল ও মামলা

রবিবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৯     167 ভিউ
কুলাউড়ায় জমি নিয়ে দু’পক্ষের পাল্টাপাল্টি দখল ও মামলা

কুলাউড়া প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার হাজিপুর ইউনিয়নের কটারকোনা বাজারে দোকান ভিটার জায়গা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিয়ে চলছে দখল পাল্টা দখল এবং পাল্টাপাল্টি মামলা। এ অবস্থায় যেকোন সময় বড়ধরণের সংঘর্ষের আশঙ্কা বাজারবাসীর।

সরেজমিন কটারকোনা বাজারে গেলে জানা যায়, কটাররকোনা বাজারের মুল্যবান ৬শতক জমি নিয়ে কটারকোনা বাসিন্দা হাজী সেলিম আহমদ ও হাসিমপুর গ্রামের বাসিন্দা মৃত হাজী শেখ জামসেদ আলীর পুত্র শেখ জাহেদ আলীর মধ্যে প্রায় ১০ বছর থেকে বিরোধ চলে আসছে। মামলা সংক্রান্ত জটিলতা ও মালিকানা নিয়ে বিরোধ ও উত্তেজনা চলছে উভয়পক্ষের মধ্যে।

মৌলভীবাজার সহকারী জজ আদালত (বড়লেখা) উভয় পক্ষের দলিল যাচাইপূর্বক চলতি বছরের ১৭ এপ্রিল জমির মালিক শেখ জাহেদ আলীর দলিল সঠিক বলে রায় দেন। আদালতের এই রায়ের প্রেক্ষিতে কুলাউড়া থানা পুলিশের উপস্থিতিতে ২০ অক্টোবর নিজ জমি ফিরে পান শেখ জাহেদ আলী।

ঘটনার ১৩দিন পর ০৩ নভেম্বর হাজি সেলিম আহমদের শতাধিক ভাড়াটে লোকজন দিনের বেলায় শেখ জায়েদ আলীর দখলে থাকা দোকান ভিটা ফের জবরদখল করেন। এসময় হামলাকারীরা দোকানঘর ভাঙচুর ও লুটপাট চালায় বলে শেখ জায়েদ আলী অভিযোগ করেন।

পাল্টা দখলের ঘটনায় ০৬ নভেম্বর শেখ জায়েদ আলী বাদি হয়ে মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬ জনকে আসামী করে মামলা (নং ৬০৮ তাং ০৬/১১/ ১৯) দায়ের করেন। আদালত মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। এই মামলা দায়েরের পর আসামীরা শেখ জাহেদ আলীর প্রাণনাশের হুমকি দিলে তিনি আদালতে ১০৭ ধারায় ২০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। আদালত আসামীদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন।

এদিকে প্রতিপক্ষ সেলিম আহমদের স্ত্রী মনজুরা আক্তার রেহেনা বাদি হয়ে ঘটনাস্থলে ১৪৪ ধারি জারি করার জন্য ৭ জনকে আসামী করে আদালতে একটি পাল্টা মামলা (নং ২৮৯ তাং ১৪/১১/১৯) দায়ের করেন।

মামলার রায় ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের হাসিমপুর গ্রামের বাসিন্দ শেখ জাহেদ আলী (৪৪) হাজিপুর ইউনিয়নের কটারকোনা মৌজা

র জে.এল নং-১২৫, এস.এ খতিয়ান-২৮০, দাগ নং-৮১৩ এর ৩.৭৫ শতক ভূমি পাশ্ববর্তী টিলাগাঁও ইউনিয়নের বাসিন্দা (তার নানি) দুধবান বিবির কাছ থেকে খরিদা সূত্রে (রেজিস্ট্রি দলিল নং-২১৮৬/২০১০) ক্রয় করেন।  ভূমিটির দলিল জাল ও নিজের মালিকানা দাবি করে প্রতিপক্ষ কটারকোনার বাসিন্দা প্রভাবশালী সেলিম আহমদ মৌলভীবাজার সহকারী জজ আদালত (বড়লেখা) এ ২০১০ সালের ১৮ মার্চ মাসে মামলা (নং ৬৭/২০১০ এবং পরবর্তীতে স্বত্ব-১০৪/১৭) একই আদালতে মামলা দায়ের করেন।

বিজ্ঞ আদালত উভয় পক্ষের দলিলাদি যাচাই করে বাদি সেলিম আহমদের দায়েরকৃত দলিল বাতিল এবং বিবাদী জাহেদ আলীর দলিল সঠিক ও জমির প্রকৃত মালিক বলে চলতি বছরের ১৭ এপ্রিল রায় প্রদান করেন মৌলভীবাজার সহকারী জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো. রিয়াজুল ইসলাম। দীর্ঘদিন থেকে এই জমিটি নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিলো।

এ ব্যাপারে জমির মালিক শেখ জাহেদ আলী জানান, আদালত আমার জমির দলিল সঠিক বলে রায় দেয়ায় জমির মালিকানা স্বত্ত¡ পেয়েছি। কিন্তুু এখন প্রতিপক্ষ আমার জমিটি জবর দখল করে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধামকি ও মিথ্যা মামলা করে হয়রানির পায়তারায় লিপ্ত রয়েছে।

অভিযুক্ত হাজি সেলিম আহমদ জানান, বিরোধকৃত জমিটি আমার বোন মনা উল্লাহর কাছ থেকে কিনেছেন। এরপর বোনের কাছ থেকে আমি জমিটি কিনেছি। এখন শেখ জাহেদ আলী নানীর ফরায়েজী সুত্রে জমির মালিকানা দাবি করছে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজ্রাতুন নাঈম জানান, আমি দলিলের প্রকৃত মালিককে আদালতে একটি ফৌজদারি মামলা করার পরামর্শ দিয়েছি। এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা যাতে বজায় রাখার জন্য আইনশৃঙলা বাহিনী বলা হয়েছে। ভুক্তভোগি যাতে সহজে জায়গা ফিরে পায় সে ব্যাপারে আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা থাকবে।

এব্যাপারে কুলাউড়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাদেক কাওছার দস্তগীর জানান, পরিস্থিতি শান্ত রাখতে উভয়পক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আদালত থেকে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা আসলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১১:০০ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৯

Sylheter Janapad |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
সম্পাদক ও প্রকাশক
গোবিন্দ লাল রায় সুমন
প্রধান কার্যালয়
আখরা মার্কেট (২য় তলা) হবিগঞ্জ রোড, শ্রীমঙ্গল, মৌলভীবাজার
ফোন
+88 01618 320 606
+88 01719 149 849
Email
sjanapad@gmail.com